ইন্টারনেটের দাম কমালো টেলিটক

সংগৃহীত ছবি

ইন্টারনেট প্যাকেজের দাম কমিয়েছে টেলিটক। তিন ও ১৫ দিনের যেসব প্যাকেজ তারা বাদ দিয়েছে, সেগুলোর ডাটার পরিমাণ (ভলিউম) ঠিক রেখে মেয়াদ ৭ ও ৩০ দিন করেছে অপারেটরটি। ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারের নির্দেশনা মেনে এ দাম কমানো হয়। এতে টেলিটক গ্রাহকরা সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন।

বুধবার (৮ নভেম্বর) দিবাগত রাত ১২টায় এই ডাটা প্যাকেজ আপডেট করেছে টেলিটক। তবে এ নিয়ে এখনও সংশয়ে রয়েছে গ্রামীণফোন (জিপি), রবি ও বাংলালিংক।

গত ৫ নভেম্বর অপারেটর কোম্পানির প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। সেখানে ৩ ও ১৫ দিনের প্যাকেজ বন্ধের পর ইন্টারনেটের দাম বাড়ানো নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি। সেই সঙ্গে দর কমাতে টেলিটককে ৮ নভেম্বর এবং গ্রামীণফোন (জিপি), রবি ও বাংলালিংককে ১০ নভেম্বর পর্যন্ত সময় বেঁধে দেন মন্ত্রী।

সেই নির্দেশনা মেনে ইন্টারনেটের মূল্য হ্রাস করেছে টেলিটক। ৭ দিন মেয়াদে ১ জিবি ডাটার দাম ২১ টাকা এবং ২ জিবি ৩৬ টাকা নির্ধারণ করেছে তারা। ৩০ দিন মেয়াদি ২ জিবি ডাটার দর ৯৩ টাকা এবং ৩ জিবি ১৩৯ টাকা ধার্য করেছে দেশের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় অপারেটরটি।

৭ দিন মেয়াদে ১০ জিবি ডাটার মূল্য ৯৭ টাকা এবং ৩০ দিন মেয়াদে ১০ জিবি ২৩৯ টাকা নির্ধারণ করেছে টেলিটক। ৩০ দিন মেয়াদি ৩০ জিবি ডাটার দাম ৩৪৪ টাকা এবং ৪৫ জিবি ৪৪৫ টাকা ধার্য করেছে তারা। এছাড়া আনলিমিটেড মেয়াদে ২৫ জিবি ইন্টারনেট ৩০৯ টাকায় গ্রাহকদের অফার করছে অপারেটরটি।

জিপি, রবি ও বাংলালিংক কর্তৃপক্ষ বলছে, ৩ দিন মেয়াদে যে দামে ডাটা প্যাকেজ দিতো তারা, এখন সেটা একই দরে ১ সপ্তাহ দিলে তাদের লোকসান হবে। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনকে (বিটিআরসি) বিষয়টি পুনর্বিবেচনার অনুরোধ জানিয়েছে তিন অপারেটর। তবে ইতোমধ্যে ব্যর্থ হয়েছে। হাতে মাত্র একদিন থাকলেও এখনও সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি তারা।

এ বিষয়ে বিটিআরসি চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদার বলেন, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ডাটা প্যাকেজ সংশোধন করেছে টেলিটক। আশা করি, অন্য তিন অপারেটরও করবে।