ভালো শিক্ষকরা সাংবাদিকদের ভয়ে উপাচার্য হতে চান না: শিক্ষামন্ত্রী

ভালো শিক্ষকরা সাংবাদিকদের ভয়ে উপাচার্য হতে চান না: শিক্ষামন্ত্রী
শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মণি এডুকেশন এক্সপোয় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখছেন - সংগৃহীত ছবি

সাংবাদিকদের প্রতিবেদনের কারণে ভালো শিক্ষকরা উপাচার্য হতে চান না বলে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মণি মন্তব্য করেছেন। আজ সোমবার (৫ জুন) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) এডুকেশন রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ (ইরাব) আয়োজিত এডুকেশন এক্সপোয় প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষামন্ত্রী এ কথা বলেন।

শিক্ষামন্ত্রী সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, আমাদের সম্মানিত যোগ্য শিক্ষকেরা যারা উপাচার্য হলে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সত্যি সত্যি এককটি সেন্টার অব এক্সসিলেন্স হতে পারে সেই মানুষগুলোকে আমরা চাওয়ার পরেও সেই জায়গায় পাই না। যেখানে মানুষ পদের পেছনে ছোটে সেখানে কেন আমরা চাওয়ার পরেই তাদের পাই না? এর মূল কারণ আপনারা, সাংবাদিকরা, বাংলাদেশের গণমাধ্যম। কারণ তারা বস্তুনিষ্ঠতার পরিবর্তে সেনসেশনালিজমের পেছনে ছোটে আর এর সরাসরি কুফল হলো আমরা উপাচার্য পাই না।

তিনি আরো বলেন, একজন শিক্ষকের মূল সম্পদ হলো তার মেধা, দক্ষতা এবং যোগ্যতা। আর এই সবকিছু দিয়ে সমাজে তিনি যে সম্মান অর্জন করেছেন এটি তার মূলত সম্পদ। কিন্তু আপনার একটা রিপোর্ট তার এই সারাজীবনের অর্জিত সম্পদকে ধুলোয় মিলিয়ে দেয়। যে বয়সে গিয়ে একজন মানুষ উপাচার্য হন সে বয়সে তাদের ছেলে-মেয়েরও এক্সটেন্ডেড ফ্যামিলি থাকে। কারও কাছে আর মান-ইজ্জত থাকে না। আপনাদের ভয়েই কেউ দায়িত্ব নিতে চায় না।

অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের কর্মজগতে প্রবেশের জন্য নিজেকে দক্ষ করে গড়ে তোলার আহবান জানিয়ে ডা. দীপু মনি বলেন, বাংলা, ইংরেজির পাশাপাশি ভাষাজ্ঞান, সফটস্কিল, সমস্যা সমাধান দক্ষতা, যোগাযোগ দক্ষতাসহ সবখাতেই আমাদের তরুণদের দক্ষ করে গড়ে তুলতে হবে। নিয়োগকর্তা এবং প্রার্থীর দক্ষতার সমন্বয় করতে হবে। তাহলে কর্মজগতে আমাদের তরুণরা পিছিয়ে থাকবে না। শুধু চাকরি খুঁজলে হবে না—তরুণদের তাদের দক্ষতাও বাড়াতে হবে। সেজন্য আগামী প্রজন্মকে আমরা প্রাথমিক-মাধ্যমিক থেকেই দক্ষ করে গড়ে তুলতে কাজ করছি। এর সুফল এখন না পাওয়া গেলেও ২০৪১ সালের সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলেও জানান তিনি।

উল্লেখ্য, ইরাব আয়োজিত দেশের সবচেয়ে বড় এডুকেশন এক্সপোতে ৬০টির বেশি সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটসহ বিভিন্ন ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান তাদের গবেষণা, প্রকাশনা ও উদ্ভাবন নিয়ে হাজির থাকবে। সকাল ৯টা থেকে শুরু হয়ে রাত ৮টা পর্যন্ত চলা এই এক্সপো সকলের জন্য উন্মুক্ত থাকবে।