ফ্লাইওভারে গলায় ঘুড়ির সূতা আটকে মোটরসাইকেল আরোহী গুরুতর আহত

ফ্লাইওভারে গলায় ঘুড়ির সূতা আটকে মোটরসাইকেল আরোহী গুরুতর আহত

রাজধানীর মেয়র হানিফ ফ্লাইওভারে ঘুড়ি উড়ানোর সূতায় আটকে চলন্ত মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে আহত হয়েছেন ইমাম হোসেন (৩২) নামে এক যুবক। আজ বুধবার (৩০ নভেম্বর) বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ফ্লাইওভারের গোলাপবাগ টোলপ্লাজার সামনে এই ঘটনা ঘটে।

গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে, ভুক্তভোগী ও তার স্বজনদের অভিযোগ, ছিনতাই করার উদ্দেশে ফ্লাইওভারের দুই পাশের রেলিংয়ের সাথে সূতা বেঁধে রেখেছিল ছিনতাইকারীরা।

ইমাম হোসেনের ছোট ভাই মো. আ. গাফ্ফার ও সহকর্মী সজল চন্দ্র জানান, ইমাম হোসেন কেরানীগঞ্জের ইকুরিয়ায় বিআরটিএ তে ইনবাউন্ড অফিসার হিসেবে চাকরি করেন। থাকেন বনানী ৫ নম্বর রোডে। বিকেলে নিজের মোটরসাইকেল নিয়ে বাসায় ফিরছিলেন তিনি। পথে হানিফ ফ্লাইওভার ব্রিজের ওপরে সূতায় গলা আটকে মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ছিটকে পড়েন। এতে তার ডান হাত, মুখমণ্ডল, বুকসহ শরীরের বিভিন্ন জায়গায় মারাত্মকভাবে কেটে যায়।

এমন সময় আরেকটি মোটরসাইকেলে তার আরেক সহকর্মী সেখান দিয়ে যাওয়ার সময় রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে পড়ে থাকতে দেখেন। তখন তাকে উদ্ধার করে মুগদা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে সন্ধ্যায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়।

তাদের অভিযোগ, ছিনতাইয়ের উদ্দেশে ফ্লাইওভারে দুই পাশের রেলিংয়ের সাথে ঘুড়ি উড়ানোর সূতা বেঁধে রেখেছিল ছিনতাইকারীরা। তবে ইমাম গুরুতর আহত হওয়ায় ছিনতাইকারীরা তাকে দেখে পালিয়ে গেছে, কিছুই নিতে পারেনি।

ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (ইন্সপেক্টর) মো. বাচ্চু মিয়া জানান, ইমামের অবস্থা গুরুতর। জরুরি বিভাগে তার অস্ত্রোপচার চলছে। ঘটনাটি থানা পুলিশকে জানানো হয়েছে।